Sita Ramam (2022) Full Hindi Movie Review | Dulquer Salmaan, Mrunal Thakur, Rashmika Mandanna New Hindi Dubbed Movie

Please wait 10 seconds...
Scroll Down & Click Get Link
Congrats! Link is Generated
Sita Ramam (2022) Full Hindi Movie Review

Movie🎬 : Sita Ramam

Release :5 August 2022

Director : Hanu Raghavapudi

      ⚠️স্পয়লার ফ্রি⚠️

✴️ থ্রিলার জনরার পরে রোমান্টিক জনরার মুভি আমার সবচেয়ে প্রিয়। এমনি এক রোমান্টিক গল্প নিয়ে দুলকার ও ম্রুনাল ঠাকুরের "সিতা রামাম"। 

⭕ মুভির শুরু হয় 1964–এ পাকিস্তানে যেখানে 5 জন টিনেজারকে নিয়ে "আনসারি" একটি মিশন শুরু করতে যাচ্ছে। যাতে পাকিস্তান আর ইন্ডিয়ার মধ্যে দ্বন্দ্ব লাগানো যায়। তো এই মিশন সম্পর্কে পাকিস্তানের এক সোলজার "তারিক" আবার জানতে পারে এবং সর্বোচ্চ চেষ্টা করে এই মিশন ফেইল করার জন্য। কিন্তু ঐ 5জন টিনেজার কে রুখতে পারে না, তারা কাশ্মিরে চলে যায়। 

এরপর ঘটনা চলে যায় 20 বছর পরে, যেখানে আফরিন নামের এক মেয়ে (রাস্মিকা মান্দানা) লন্ডনে থাকে। সেখানে ইন্ডিয়ার এক লোক মিডিয়াতে পাকিস্তানকে ছোট করে কথা বললে এতে সে রেগে গিয়ে সেই ব্যক্তির গাড়িতে আগুন দিয়ে দেয়। এরপর পাকিস্তান এম্বাসিতে তাকে ডাকা হয়, কিন্তু সে স্যরি বলতে রাজি নয় বলে 10 লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়। কিন্তু তার কাছে ওতো টাকা না থাকায় সে টাকার জন্য তার দাদুর কাছে চলে আসে (তার দাদু পাকিস্তানের সোলজার "তারিক") পরে সেখানে গিয়ে জানতে পারে তার দাদু অনেকদিন আগেই দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছে। আর তার জন্য একটা চিঠি রেখে গেছে যেখানে বলা হয়েছে সে তার সম্পত্তি ততদিন পর্যন্ত ভোগ করতে পারবে না যতদিন না সে রামের (হিরো)দেওয়া চিঠি সিতার (হিরোইন) কাছে পৌঁছে দিচ্ছে। 🙂

তারপর আর কি আফরিন বেরিয়ে পড়ে চিঠি নিয়ে সিতাকে দেওয়ার জন্য। তারপর কোথাও সিতার খোঁজ না পেয়ে সে হতাশ হয়ে যায়। ঠিক সেই মূহুর্তে তার মনে পড়ে যে রাম কে খুঁজে বের করলেই তার সিতার খোঁজ পাওয়া যাবে। দেন রামের খোঁজ করতে করতে তার বন্ধুদের সাথে দেখা হলে ফ্ল্যাশব্যাক এ আমাদের 20 বছর আগে রাম ও সিতার কাহিনি দেখানো হয়।

⭕সিতা আর রাম যতক্ষণ স্ক্রিনে ছিল ততক্ষন স্ক্রিন থেকে চোখ ফেরানো যায়নি 😍

রোমান্স, থ্রিল, একশনে ভরপুর ছিল। 

দুলকারের অভিনয় নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই বরাবরই একটা রিয়ালেস্টিক ভাব দেয় তার অভিনয়। অন্যদিকে ম্রুনাল ঠাকুর (ম্যাম) এর এক্সপ্রেশনে গুলো অসম্ভব ভালো লাগছে। এক মিনিটের জন্য ও মনে হয় নি অভিনয় করছে। বিজিএম এর কথা না বললেই নয়, প্রত্যেকটা সিনারির সাথে বিজিএম টা বেশ দারুণ লেগেছে। সব মিলিয়ে অসাধারণ একটা গল্প উপভোগ করলাম। 🖤

# কারা মুভিটি এখনো দেখেন নি জানান দিয়েন।

[𝙎𝙞𝙩𝙖 𝙍𝙖𝙢𝙖𝙢]  

®️ 𝙋 𝙍 : 8/10

🔰অনেক দিন পরে কোন রোমান্টিক মুভির সাথে সাক্ষাৎ করলাম। এই জনরার মুভি অবশ্য খুব কমই দেখা হয় আমার। এইটাও দেখার তেমন কোনো প্ল্যান ছিলো না তবে অনেক গুলো রিভিউ পড়ার পর আগ্রহ বাড়লো আর যেহেতু দুলকার সালমান আছে তাই একটা ট্রাই দিয়ে দিলাম। দুলকারের ফ্যান তো অনেক আগে থেকেই ছিলাম তাই অবশেষে দেখে নিলাম সম্প্রতি তার মুক্তি পাওয়া মুভি "সীতা রামাম"। 

        [ হালকা স্পয়লার (পড়তে পারেন) ]

🔰𝙎𝙩𝙤𝙧𝙮 : কাহিনি রাম নামক একজনের লেখা একটা চিঠিকে কেন্দ্র করে যেটা কিনা লেখা হয়েছিলো ২০ বছর আগে কিন্তু এখনো তার গন্তব্য মানে সীতার কাছে পৌছায় নাই। ২০ বছর যাবত এই চিঠিটা এক জায়গায় রয়েছে কিন্তু জায়গা মতো পৌছাতে পারছে না। শেষ পর্যন্ত একটা কারণে আফরিন নামক একজনের হাতে এই দায়িত্বটা পরে যে এই চিঠিটা তার সীতার কাছে পৌছে দিতে হবে তাও আবার ২০ বছর আগের লেখা চিঠি। কে এই রাম যার চিঠি এতো বছর চলে যাওয়ার পরেও এখনো সীতার কাছে পৌছাবার অপেক্ষায় রয়েছে? বা কে এই সীতা যে ২০ বছর যাবত শুধু মাত্র এই চিঠিটার অপেক্ষায় রয়েছে? এবং এমন কি ই বা লেখা রয়েছে সেই চিঠিতে যে এতো বছর পরেও এইটা পৌছানো দরকার? এইসব প্রশ্নের সাথে এখন আফরিন কি শেষ পর্যন্ত পারবে কি না সেটা জানতে হলেই এই মুভিটা দেখুন

🔰𝙋𝙚𝙧𝙨𝙤𝙣𝙖𝙡 𝙊𝙥𝙞𝙣𝙞𝙤𝙣 : এক ঘেয়ে রোমান্টিক মুভি দেখার পরে জেন ফ্রেশ কিছু দেখলাম এই জনরাতে। অবশ্য এই জনরার মুভি আমার বেশি দেখা নেই তবে যেগুলো দেখছি তার থেকে একটু হলেও ভিন্ন অভিজ্ঞতা দিয়েছে এইটা। মুভি শুরু হয়ে যাওয়ার পর কিছুক্ষণ পর্যন্তও আমার মনে প্রশ্ন ছিলো যে এইটাও মনে হয় সেই অন্যান্য প্রেম কাহিনির মতোই হবে। তবে মুভি যতটা সামনের দিকে যেতে থাকে ততটাই আমার সন্দেহ দূর হতে থাকে, যে না এইটা ভিন্ন কিছু দিবে। আর হলোও তাই মুভির এন্ডিং আমার জন্য সন্তোষজনক ছিলো। অন্তত পক্ষে সেই একই মেডিকর এন্ডিং তো দেয় নাই। মুভির আসলে প্লট থাকে ২ টা একটা হলো আর্মি এবং ইন্ডিয়া -পাকিস্তান নিয়ে একটা এস্পেক্ট আর আরেকটা হলো তার প্রেমের যে এস্পেক্ট সেইটা। এই দুইটা জিনিসই মুভি একদম শেষ পর্যন্ত অনেক ভালোভাবে মেইনটেইন করছে। মুভি একটা সময়ে আপনার মধ্যে জানার ইচ্ছা জাগাবে যে সামনে কি হবে আর ধীরে ধীরে একদম শেষ পর্যন্ত এই মূহুর্তটা আপনার মধ্যে থাকবে। মুভির এক্টিং ডিপার্টমেন্টে সবাই ভালো করেছে। দুলকার প্রত্যেক বারের মতোই দারুন ছিলো। যতোটা বুঝেছি সকল দিকেই মুভি নিজের সেরা ট্রাই দিছে বাট কিছু যায়গায় সফল হয় নাই। কয়েকটা জিনিস কে বাদ দিয়ে চলে গেছে মানে কয়েকটা সিন শুধু মুখে শুনিয়ে দিছে যেইগুলা দেখালে আরো ভালো হতো। বেকগ্রাউন্ড মিউজিক মোটামুটি ছিলো আরো ভালো করা যেতো তবে সমস্যা নেই চলে যায়।

🔰এই জনরাতে অনেক ভালো একটা মুভি সীতা রামাম। সব কিছু মিলিয়ে দারুন উপভোগ্য ছিলো আমার জন্য। না দেখে থাকলে ট্রাই দিতে পারেন সময়টা খারাপ কাটবে না। 

ভুল ক্রুটি ক্ষমার আদর্শে দেখবেন।

Sita Ramam (2022) Full Hindi Movie Review

MOVIE :SITA RAMAM (2022)

DIRECTOR : Hanu Raghavapudi

PR:5/10 

🗣️নো স্পয়লার

দুলকার সালমানের একনিষ্ঠ ভক্ত আমি,সেই ওস্তাদ হোটেল থেকে। প্রায় সবকটি মুভি আমার অনেকবার দেখা যার দরুন জয়া ফ্যাক্টর এর মতো বাজে মুভিও গিলতে হয়েছে, (বিঃদ্রঃআমি দুলকারের এতো বড়ো ভক্ত যে ১৮ সালে কারওয়ান বের হওয়ার পর আমার সবগুলো জিমেইল নতুন করে খুলেছি karwan নাম দিয়ে, তো শিতা রামাম এ আসাক যাক,ব্যাক্তিগতভাবে কান্নুম কান্নুম, হান্ডেড ডেইজ অফ লাভ,কমরেড ইন আমেরিকা এই ধারার রোমান্টিক মুভির পর শিতা রামাম বেশ প্রমিসিং মনে হয়েছে।কিন্তু বেশ অনেকক্ষন দেখে বুঝলাম নতুন বোতলে পুরাতন কাসুন্দি, ইন্ডিয়ান আর্মি গ্রেট, ঠিক যেমনটা টাইগার জিন্দা হে কিংবা ওয়ার কিংবা জন আব্রাহামরা একাই সব সন্ত্রাসীকে সমূলে উৎপাটন করে ঠিক সেভাবেই ইন্ডিয়ান আর্মির ছোট একটা স্কোয়াড একাই ওদের থেকেও সংখ্যায় বেশি মুজাহি/দিন/ টেরো/রিস্ট দের শেষ করে ফেলে নিজেদের বিন্দুমাত্র ক্ষয়ক্ষতি ছাড়া, মানে বাকি দশটা দেশপ্রেমের আপডেট ভার্সন আরকি!

এছাড়া আরেকটি দৃস্টিকটু বিষয় লেগেছে পোষাক, ড্রেসআপ, লুক,আর চুলের স্টাইল,বেশ চোখে লাগছিলো,ষাটের দশকের সাথে বেশ খাপছাড়া লেগেছে

️মুভিতে প্রচুর প্লটহোল ছিলো, আগের মুভি বানানোর ক্ষেত্রে ইতিহাস নিয়ে বেশ সচেতন হতে হয়, এক্ষেত্রে ডিরেক্টর কতটুকু সচেতন ছিলো তা মুভি দেখলেই বুঝা যায়,প্রতিবেশি দেশের মানুষজনদের দেশপ্রেম বেশ ভালো, দেশপ্রেমের মুভি বেশ ভালো মার্কেট কিংবা আইএমডিবি রেটিং কিংবা ব্যাবসা সফল হয় আরকি

পজিটিভ দিক➡️মুভিতে জিসুর ক্যামিও বেশ ভালো লেগেছে, গুনী এক্টর 

এছাড়া বরাবরের মতো রেজিমেন্ট প্রধান সেলভানের অভিনয় বেশ চমকপ্রদ ছিলো,একটা পয়েন্টে সবাই একমত, অসাধারন সুন্দর লেগেছে ম্রুণালকে। স্ক্রিনে পুরোটা সময় ম্রুণাল ঠাকুরকে আকর্ষনীয়,উৎফুল্ল আর ফোকাসড ক্যারেক্টার লেগেছে, প্রায় সবটা সময় দর্শকদের নিজের কাছে আকৃষ্ঠ করে রেখেছে, এছাড়া ন্যাচারাল সিনারিগুলা মানে ভূস্বর্গ কাশ্মীরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বিশেষভাবে ফুটে উঠেছে পাকিস্তানি ড্রামাগুলোর মতো। 

সর্বোপরি ইতিহাস বাদ দিলে একবার দেখার মতো সিনেমা কিন্তু কিভাবে মাস্টারপিস হয় তা একমাত্র রিভিউদাতারাই জানেন,এর থেকে রোমান্টিক মুভি কি উনারা দেখেননি কিংবা এইটাই প্রথম দেখা রোমান্টিক মুভি তা বুঝা দুষ্কর,দশে দশও দিচ্ছেন অনেকে

📽Sita Ramam | Genre:- Drama, Mystery 

                       Little Bit Spoiler 

::: পরিচালকের গল্প বলার জন্য অনেক টুলের মধ্যে দুইটি হলো কস্টিউম,মেকআপ। যেটা ক্যারেক্টার ট্রান্সফ্রম, ডিটেলিং, কালচার, ক্যারেক্টার পার্সোনালিটিকে রিপ্রেজেন্ট করে। তার থেকে বড় কথা পিরিয়ডিক স্টোরিটেলিং এ সেট ডিজাইন কথা বাদ দিয়ে যদি শুধু ক্যারেক্টারের কথা আসে তাহলে কস্টিউমই একমাত্র পন্থা যেটা ওই স্পেসিফিক পিরিয়ডকে রিপ্রেজেন্ট করতে পারবে। এখানে পিরিয়ডের একটা বড় ভূমিকা আছে। কিন্তু এটা দেখার পর ভেবে কূলকিনারা পাই না আদৌ কি এখানে মেকআপ,কস্টিউম ডিজাইনার ছিলো?? এটাকে পারফেক্ট ফিল্ম বলার আগে যদি মেকিং এলিমেন্টের সব দিক বিবেচনায় আনা হয় তাহলে সিতা রামাম পারফেক্ট ফিল্মও না। কারণ ওই এলিমেন্টে কস্টিউম, মেকআপ ও আছে। ওর মাস্টারপিস ও তো বহুত দূর কি বাত হে!! ওর হ্যাঁ কাল্ট ক্লাসিক? ও তো সামায় কি বাত হে!

• এটা তেলেগু ফিল্ম তাই লজিক নামক জিনিশটা এড়িয়ে যাবো ব্যাপারটা এমন না কারণ এটা হার্ডকোর মাসালা ফিল্ম না। তাই গল্পের অনেক পর্শন আছে যেগুলা দেখলে আসলে হাস্যকর মনে হয়। যেমন, রাম আর্মি হয়ে সিতা যে প্রিন্সেস এটা জানে না!! জানলেই বা কি হতো? অনেক কিছু হতে পারতো। এই ছোট ইনফো সামনের পুরো ইভেন্টটা চেঞ্জ করে দিতে পারতো। যাইহোক, এইসব ব্যাপার এড়িয়ে গেলে মুভি খারাপ লাগবে না। 

দুলকারের চার্মিংনেস, মৃণালের ঐশ্বরিক সৌন্দর্য যদিও এর বড় কারণ হিসাবে বলিউডের এভারগ্রিন বিউটি মদুবালার অনুকরণ করাটা ধরা যায়। ওর স্ক্রিন প্রেজেন্টস লিটারলি ম্যাজিক ক্রিয়েট করেছে। তাদের আউট অফ দ্য বক্স কেমিস্ট্রি। বেন্নেলা কিশোরের কমিক টাইমিং এবং তার বাড়ির সেট ডেজাইন। দারুণ ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর। রাশ্মিকা বাদে সবার সাবলীল অভিনয়। তেলেগু লজিক দিয়ে যতই পিছিয়ে থাকুক তাদের শিকড়, কালচার, ধর্মীয় ম্যাটাফর গুলা ভালোই ফুটিয়ে তুলতে পারে। এটার ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম ঘটে নাই। অবশ্য একই সাবকন্টিনেন্টের হওয়ায় এইসব আমরাও কিছুটা হলেও কানেক্ট করতে পারি।

Sita Ramam (2022)

IMDB- 84

This Art Frome :-Hanu Raghavapudi

স্পয়লার থাকবে না।

শেষ কবে এমন মুভি দেখে রেশ থেকে গেল ঠিক মনে নেই।

তোমাকে দেখেছি শেষ কবে মনে হয় কত শত কোটি বছর পেরিয়ে গেল ঠিক মনে নেই ,আমি জানি তোমার সাথে আমার আর দেখা না হলেও তুমি আমার জন্য চিরজীবন অপেক্ষা করবে,আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি যা আমি তোমাকে বলতে চাচ্ছি না তুমি বুঝে নিও ।

তুমি সুন্দর তাই চেয়ে থাকি সে মোর অপরাধ নয় ,তোমাকে ভালোবাসি সে তো মোর অপরাধ নয় 

তোমার ভাগ্য আর আট দশটা মেয়ের থেকে একটু আলাদা কারণ আমার মত একজন তোমার প্রেমে পড়েছে।

যুদ্ধের মাঠে সবাই মৃত, আমি যুদ্ধে যাচ্ছি তুমি আমার জন্য দোয়া কইরো আমি যেন তোমাকে আর একটি বার দেখার সাধ পায় এই জীবনে।

 

বলতে চাচ্ছি আমার সবচেয়ে পছন্দের মানুষ দুলকার সালমান এর রিসেন্ট মুভি সিতা রামাম নিয়ে মুভিটা কত সুন্দর আহাহ ।

কাশ্মীর মধ্যে এত সুন্দর মুভি আর আছে কিনা আমার জানা নেই।

মূর্নাল ঠাকুর আহা কি মায়াবী মনে হচ্ছে কোন কল্পনার পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর রূপসী কে দেখলাম জাস্ট 🖤

দুলকার সালমান এর কথা কি বলব আর একটা ফ্লিম প্লেয়ার এওয়ার্ড পেতে যাচ্ছে সত্যি একজন জেন্টল ম্যান এত সুন্দর সাবলীল অভিনয় রূপ কথার গল্পে মানায়। 

মুভির ডিরেক্টরের কথা বলতে গেলে বলতে হয় 2022 এর সেরা মুভি এটা এত সুন্দর করে বানিয়েছে মুভিটা ডিরেক্টর Hanu Raghavapudi ।

 

আর মুভির প্রাণ হল মিউজিক প্রতিটা সাউন্ড আপনাকে সেই 1960 সালে নিয়ে যাবে এত বেশি সুন্দর যা বলার অপেক্ষা রাখে না মিউজিক কম্প্রেসড বাই Vishal Chandrasekhar।

যারা এখন দেখেননি তারা তারি দেখে ফেলুন পরিবার সাথে দেখতে পারবেন (veer zarar )পর এমন মুভি ইন্ডিয়ার সিনেমায় চোখে পড়েনি আমার ,থাকলেও থাকতে পারে।

Movie name: Sita Ramam

IMDB Rating: 85/10

Genre: Romance

হালকা স্পয়লার আছে।

মুভিটার ভালো ও মন্দ দু দিকই বলব আমি। শুরুতে ভালো দিক গুলো নিয়েই শুরু করি। কোরিয়ান মুভি “A Moment to Remember” দেখার পর শেষ কবে কোন রোমান্টিক মুভি দেখে চোখ ঝাপসা হয়ে এসেছিল মনে নেই। দুলকার সালমান আর মৃণাল ঠাকুরের Sita Ramam দেখার পর শেষের দিকে সত্যি চোখ দু’টো কখন যে, ঝাপসা হয়ে এসেছিল টেরই পাইনি। নিঃসন্দেহে Sita Ramam দুলকার সালমানের ক্যারিয়ারে আরেকটি সাফল্যের পালক যুক্ত করেছে। আর মৃণাল ঠাকুরের ব্যাপারে বলব, মেয়েটা এত্ত বেশি কিউট কেনো?? অবশ্যই এটা মৃণালের এখন পর্যন্ত বেস্ট মুভি।

দুলকার অভিনয়কে criticize করার যোগ্যতা আমার নেই, তাই আর বলতে চাচ্ছি না সে মুভিতে কেমন করেছে। আর মৃণাল ঠাকুর তো রীতিমত ফাটিয়ে দিয়েছে। সাপোর্টিং রোলে রাশমিকা মান্দানাও বেস্ট ছিল, এই প্রথম মনে হয় মেয়েটা ন্যাকামি থেকে বেড়িয়ে এসেছে।

কোন আইটেম সং ছাড়া, ৩০০/৪০০ কোটি বাজেট ছাড়া কিভাবে একটা অসাধারণ সিম্পল গল্প দিয়ে দর্শকদের মন জয় করা যায় তা মনে হয় ভারতের সাউথের পরিচালকদের চেয়ে ভালো আর কেউ জানে না।

পরিচালক Hanu Raghavapudi অল্প বাজেটে প্রায় নিখুঁত এবং নিখাদ একটা মিষ্টি প্রেমের গল্প উপহার দিয়েছেন। আর প্রতিটা গানই খুব খুব সুন্দর, সুর গুলো একদম হৃদয় ছুঁইয়ে যায়। এই মুভিতে ১৯৬৫ আর ১৯৮৫ সালের প্রেক্ষাপট তুলে ধরা হয়েছে। আর পরিচালক তার অল্প বাজেটে সেই সময়ের পরিবেশ তুলে ধরতে চেষ্টার কোন ত্রুটি করেন নাই।

অনেকেই বলতেছে যে ১৯৬৫ আর ১৯৮৫ এই ২০ বছরের সময় ব্যবধানের এনভায়রনমেন্ট নাকি পরিচালক ঠিক মত তুলে ধরতে পারেন নাই। আমি তাদের সাথে এক মত নই, আসলে ২০ বছর খুব বেশি সময় না। মাত্র ২০ বছর সময়ে একটা এলাকার পরিবেশে এতও আকাশ পাতাল পরিবর্তন আসে না যে তা চোখে আটকে যাবে। তবে যদি এমন হোত বর্তমান মিলেনিয়ামের ২০ বছর সময় ব্যবধানের পরিবেশ দেখানো হয়েছে তাহলে আমি যুক্তি মেনে নিতাম। কারণ বর্তমান সময়ে সব কিছু যতটা ফাস্ট চেঞ্জিং সেটা ১৯৬৫ এর দিকে অবশ্যই এতটা ফাস্ট পেসে পরিবর্তনশীল ছিল না।

আর মুভিটি যেহেতু কাশ্মীর নির্ভর তাই বুঝতেই পারছেন পৃথিবীর স্বর্গ কাশ্মীরের দৃষ্টিনন্দন সৌন্দর্য দেখতে পাবেন এই মুভিতে।

এবার আসি মুভির নেগেটিভ দিক গুলা নিয়ে। মুভির কিছু দৃশ্যে VFX দিয়ে আগুন দেখানো হয়েছে, যেমন রাশ্মিকার গাড়ি পুড়িয়ে দেবার দৃশ্য। আবার কাশ্মীরে হিন্দু পণ্ডিতদের গ্রামে আগুন লাগানো দৃশ্য। এই দৃশ্য গুলোতে যে আগুন পুরো VFX দিয়ে ভার্চুয়ালি দেখানো হয়েছে তা এতটাই নিম্নমানের ছিল যে দেখলেই বুঝা যায় তা ফেইক। কিছু দৃশ্যে VFX দিয়ে প্রজাপতি উড়ার দৃশ্য দেখানো হয়েছে সেগুলাও খুব বাজে VFX ছিল।

সব পাকিস্তান আর ইন্ডিয়ান আর্মি মুভিতে যা দেখানো হয়, এখানেও তাই দেখানো হয়েছে। মানে ইন্ডিয়ান আর্মি ফেরেশতা আর পাকিস্তানি আর্মি মানেই খারাপ। এর পরেও একটা পজেটিভ দিক হলো, রাশ্মিকার দাদা পাকিস্তানী আর্মির আবু তারিককে যথেষ্ট মানবিক দেখানো হয়েছে। যা আগের কোন হিন্দি মুভিতে দেখিনি।

এই মুভির সবচেয়ে সবচেয়ে দৃষ্টিকটু ত্রুটির কথা বলব এখন আমি। মুভিতে ১৯৬৫ সালে সীতাকে যেমন দেখায় একদম শেষের দিকে এসে ১৯৮৫ সালে সীতাকে দেখানোর আগ পর্যন্ত ভাবসিলাম কিছুটা বয়স্ক সীতাকে দেখব আমরা। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে দেখলাম ১৯৬৫ সালের সীতা আর ১৯৮৫ সালের সীতার মাঝে কোনই তফাত নেই। মৃণাল ঠাকুর এই ২০ বছরে একটুও বুড়িয়ে যায়নি।

এই অল্প কিছু নেগেটিভিটি বাদ দিলে মুভিটা যথেষ্ট পারফেক্ট। আর অবশ্যই আমার প্রিয় রোমান্টিক মুভির তালিকায় এই মুভির স্থান বেশ উপরের দিকেই থাকবে। সব শেষে বলব, ছুটির দিনে ড্রইং রুমে ফ্যামিলি সহ পরিবারের সবাইকে নিয়ে দেখার মত মুভি Sita Ramam আর অবশ্যই আমার মত মুভি পাগলাদের জন্য মাস্ট ওয়াচ। Happy Watching

বিঃ দ্রঃ উপরে উল্লেখিত সকল ভাবনা একান্তই আমার নিজস্ব মতামত। আমার সাথে অন্যের মত এক নাও হতে পারে। এ নিয়ে অযথা আজে বাজে কমেন্ট করবেন না বরং আপনার মতামত আপনি নিজের পোস্টে প্রকাশ করুন।

#SitaRamam

A Classical love story which will remain fresh for years

বেশ কিছুদিন পর এমন একটি হৃদয় ছুঁয়া মুভি দেখলাম।

⏹️মুভিঃ Sita Ramam 

⏹️ইন্ডাস্ট্রিঃ তেলুগু

⏹️আইএমডিবিঃ ৮২ (আরও বাড়বে)

⏹️জনরাঃ রোমান্স, ড্রামা, মিস্ট্রি 

⏹️বাজেটঃ ৩০ কোটি

⏹️বক্স অফিস কালেকশনঃ ৯০ কোটি+ 

⭕ভার্ডিক্টঃ ট্রিপল ব্লকবাস্টার 

#হালকা_স্পয়লারঃ---

আফরিন পাকিস্তানি তরুণী, বলতে গেলে অনেকটা হিন্দু বিদ্বেষী। লন্ডনে সে পড়ালেখা করে। কলেজে এক গাড়ি পোড়ানোর অপরাধে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয় তাকে। তো এতটাকা পরিশোধ করার জন্য বাধ্য হয়েই তাকে বাড়িতে যোগাযোগ করতে হয়, যদিও কোনো এক কারনে অনেক দিন ধরে বাড়িতে যোগাযোগ নেই তার। 

বাড়িতে তার চাচা টাকা দিতে রাজি হয় তবে টাকাটা দিবে এক শর্তে। শর্তটা হলো- ২০ বছর আগের আফরিনের দাদার সার্ভিস সময়ের এক ইন্ডিয়ান লেফটেন্যান্টের চিঠি ভারতের এক নারী সীতা মহালক্ষীর কাছে পৌছে দিতে হবে। 

লেফটেন্যান্ট রাম কে? সীতা মহালক্ষী ই বা কে?? কেনই বা ২০ বছর আগের একটা চিঠি পৌছানো এতটা জুরুরি??? এসব জানতে হলে মুভিটা দেখতে হবে। 

★পজিটিভ দিকঃ

১) মুভিটাকে দশকসেরা ক্লাসিক্যাল রোমান্টিক মুভি বললেও ভুল হবে না হয়তো৷ 

২) মিউজিক, Bgm হলো এই মুভির প্রাণ। মিউজিক ডিরেক্টর অবশ্যই অবশ্যই পুরস্কার পাবে অনেকগুলো। 

৩) মুভির মেকিং ও স্ক্রিনপ্লে দুর্দান্ত, ভিজুয়ালস্ দারুণ। 

৪) সাউথের নতুন ক্রাশ হতে যাচ্ছে ম্রুনাল ঠাকুর। দারুণ কাজ করেছে। 

৫) দুলকার সালমান তেলুগুতে আরও একটি ফ্লিমফেয়ার জিততে যাচ্ছে সম্ভবত।

৬) রাশ্মিকা মান্দানা সচারাচর থেকে ব্যতিক্রমী কাজ করেছেন, দুর্দান্ত। তার চরত্রটি মূলত Extended Cameo ছিলো। 

★নেগেটিভ দিকঃ

-আমি নেগেটিভ তেমন কিছু পাই নাই 

পারসোনাল রেটিংঃ ♥️♥️/১০

🎞️ Sita Ramam {2022}

Cast- Dulquer Salmaan,Mrunal Thakur,Rashmika 

Director -Hanu Raghavapudi

Language - Telegu (Bsub) /Hindi Cleaned 

IMDb-82/10

My Rating- 🖤/10

⚠️No Spoiler⚠️

কিছু মুভি থাকে যেগুলি খুব ভালো হয়। আর কিছু থাকে ভালোর থেকেও ভালো। এটা সে রকমই একটা ছবি। আহা এতো সুন্দর রোমান্টিক মুভি দেখি না অনেক দিন। এই মুভিটা আমার প্রিয় মুভিগুলোর লিস্টের উপরেই থাকবে। আমি মুভি সম্পর্কে খুব বেশি ধারণা রাখি না। তাই মাস্টারপিস বা না দেখলে জীবন বৃথা এইসব বলতে চাই না। কিন্তু,হ্যাঁ সম্প্রতি এটা দারুণ কাজ তা বলতেই হবে। মালায়ালাম প্রিন্স দুলকার সালমান 🖤

আমার মালায়ালাম এর সবচেয়ে প্রিয় নায়ক উনি। তার প্রায় সবগুলো মুভি দেখার চেষ্টা করি আমি। তিনি ইদানিং দারুণ সব কাজ করে যাচ্ছেন। প্রায় সব ইন্ড্রাস্টি দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন 💥

এই মুভিটা তেলেগু ইন্ড্রাস্টির। এই ইন্ড্রাস্টির জন্য তিনি আউটসাইডার। তবে বলে না যে কন্টেন্ট ইজ দ্যা কিং 🥰

ছবি যদি ভালো হয় তাহলে দর্শক তা দেখবেই। তাই তো সমালোচকদের পাশাপাশি পাব্লিক রিভিউ ও দারুণ এই মুভির। 

সেই জন্যই বক্সঅফিস এ এই ছবি বক্লবাস্টার 💥।

এই মুভি নিয়ে যতটা এক্সপেকটেশন ছিলো তার চেয়ে বেশি পেয়েছি বলতে হবে। গল্প,অভিনয়,বিজিএম,সিনেমাগ্রাফি সব কিছুই দারুণ। সব চেয়ে ভালো লেগেছে সালমান আর ম্রুনাল ঠাকুর এর কেমিস্ট্রি। 🥰

মুভিটা রোমান্টিক হলেও এটার কাহিনী খুব সুন্দর ভাবে এগিয়েছে। আর কিছু সময় পর পর ছোট ছোট টুইস্ট আপনার আগ্রহ বহু গুণে বাড়িয়ে দিবে। ১৯৬৫ সালের কাহিনী নিয়ে তৈরি মুভিটা ১৯৬৫ আর ১৯৮৫ তে ফোকাস দিয়েছে। একটা চিঠি আহা ২০ বছর ধরে গন্তব্যের অপেক্ষায় 

এই চিঠি পোছানো নিয়েই মুভি শুরু।চিঠি পৌছে দেওয়ার কাজটা রাশ্মিকার। প্রেম যে বাধা মানে না তা এই মুভিতে আবার দেখিয়ে দিয়েছে খুব সুন্দর করে। এ যেন এক ক্লাসিক প্রেমের ক্লাসিক মুভি। দেশ প্রেম আর পাকিস্তান এই বিষয় গুলি মুভিতে থাকলেও অন্যসব বলিউড বা অন্যকিছু মুভির মতো টিপিক্যাল ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ দেখায় নি। এই বিষয় টা ভাল্লাগছে 

দেশপ্রেম আর ভালোবাসার সংমিশ্রণে এক দারুণ নির্মাণ 

🎞️সিতা রাম 

নায়ক তো লেফটেন্যান্ট তো নায়িকা কে? আর কি কি বাধা আসে তাদের প্রেমে,দিন শেষে কি তারা এক হতে পারবে? 

জানতে হলে দেখে ফেলুন সাধারনের মধ্যে অসাধারণ এই মুভিটি। 

⚠️(বিদ্র-আমি রিভিউ দিতে পারিনা ভালো করে। শুধু নিজের ভালো লাগাটা প্রকাশ করার ক্ষুদ্র চেষ্টা। ভুল-ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন) 

মুভিটা দেশিও ওয়েবসাইটে পেয়ে যাবেন। তাই শুধু শুধু লিংক চেয়ে সময় নষ্ট করবেন না। 

ধন্যবাদ

Sita Ramam (2022) Full Hindi Movie Review

 Movie: Sita Ramam (2022) 

Cast:** Dulquer Salmaan, Mrunal Thakur, Rashmika Mandanna,** etc

Runtime: **2h 43m **

IMDb:** 85/10**

**98% **google users liked this film

বলতে গেলে দুলকার সালমান এর পাগলা ভক্ত আমি। 2016 তে প্রথম আমি দুলকার সালমান বেঙ্গালুরু ডেইজ মুভিটা দেখি। 

সেটা আমার কাছে তখন এতো ভালো লাগে যা বলার বাহিরে। তারপর চার্লি দেখার পরে আমি দুলকার সালমান এর একজন পাগলা ভক্ত হয়ে যাই। সত্যি চার্লি একটা ভালবাসার নাম, একটা আবেগের নাম।

তারপর একে একে দুলকার এর সব মুভি গুলো দেখা শুরু করি।

যাইহোক আজ আর ওইদিকে যাচ্ছি না।

আজকে কিছু লিখব ***সীতা রামাম *** মুভি নিয়ে।

যদি বলেন যে এই মুভিটার রেটিং কেমন দিবেন? 

তাহলে আমি বলব এ বছরে আমার দেখা সেরা ইন্ডিয়ান মুভি এইটা।হয়তো একটু বেশিই বলে ফেলেছি।

সত্যি বলতে, মুভি দেখতে দেখতে কখন যে রামের সাথে সাথে আমিও সীতার প্রেমে পড়ে গেছি সেটা নিজেও জানিনা। 💕

> এরকম লাভ স্টোরি দেখে আমারও উনিশ শতকের যুগে যেতে ইচ্ছে করছে।

> ইচ্ছে করছে সীতার মত একটা প্রেমিক পাবার!💕 

> ইচ্ছে করছে এসব ডিজিটাল দুনিয়া বাদ দিয়ে হারিয়ে যাই সীতা রামের চিঠির প্রেমের দুনিয়ায়! 💕

> কেন জানি মন বলছে তার প্রেমে ডুবে থাকতে!💕

> ইচ্ছে করছে তার অপেক্ষায় ডুবে থাকতে!💕

মৃণাল ঠাকুরের কথা কি আর বলব! তার ওই মায়াবী চোখের চাহনি আমায় পুরাই পাগল করে দিয়েছে। 😇

মুভির গানগুলো অত ভালো না হলেও মৃণালের জন্যই বারবার দেখতে ইচ্ছে করছে।😇 

আমি মৃণাল ঠাকুর কে প্রথম দেখি সুপার থার্টি মুভিতে। সেটাতেও মৃণাল এর মেকআপ অনেকটা সীতা রামাম মুভির সীতার মতই ছিল।

> রিত্তিকের ভালোবাসার বিসর্জন সবার নজর কারলেও, সেখানেও মৃণালের ইনোসেন্ট চাহুনি আমার হৃদয়ে নাড়া দিয়েছিল। তাইতো, ন্যাশনাল ক্রাস থাকলেও আমার চোখ আটকে ছিল মৃণালের ওপরেই।😇💕

যাইহোক, এই মুভিটাতে ভূস্বর্গ কাশ্মীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুব সুন্দর ভাবে তুলে ধরা হয়েছে। যেটা দেখে যে কেউ মুগ্ধ হতে বাধ্য। আর স্ক্রিনপ্লে ছিল অসাধারন। আর টার সাথে অস্থির বিজিএম তো আছেই। যাকে বলে পুরাই মাথা নষ্ট।

যাইহোক,

আমি কয়েকদিন আগে একটা রিভিউ দেখছিলাম, একজন খুব সুন্দর ভাবে উল্লেখ করেছিলেন যে, সরি দিয়েই মুভি শুরু আর সরি দিয়েই মুভি শেষ। কিন্তু তখন আমি ভাবিইনি যে শেষটা এমন হবে! সত্যি একটা আনএক্সপেক্টেড এন্ডিং দিয়েছে মুভিটার।😞

সত্যি বলতে শেষ অংশে আমিও সীতার মতো অপেক্ষায় ছিলাম। হয়তো রাম ফিরবে। কিন্তু😞 

ভাবিনি শেষটা এভাবে শেষ হবে। যদি শেষটা শ্যাম সিংহ রায়ের মতো হতো, তাহলেও নিজেকে কিছুটা সান্ত্বনা দেয়া যেত।

কিন্তু সেটাও হলো না! আফসোস😞

আর এডমিন আপুকে অনেক ধন্যবাদ। আপু গ্রুপের কভার ফটো চেঞ্জ করাতেই বাকি তিনটা মুভি রেখে এই মুভিটা আগে দেখা শুরু করেছিলাম।

 ধন্যবাদ আপু💕

 যাই হোক, আমি মনে হয় বেশিই বকবক করে ফেলেছি। তাই আর স্পয়লার দিচ্ছি না। কারণ, আমার মনে হয় ইতিমধ্যে প্রায় সবারই এই মুভিটা দেখা হয়ে গেছে। 

আর যদি না দেখে থাকেন তাহলে দেখতে পারেন।

 আশা করছি হতাশ হবেন না।

 ধন্যবাদ💕

( সম্পূর্ণটাই ব্যক্তিগত মতামত, তাই কেউ পার্সোনালি নিবেন না)

𝗠𝗼𝘃𝗶𝗲 𝗻𝗮𝗺𝗲:𝗦𝗶𝘁𝗮 𝗥𝗮𝗺𝗮𝗺

Industry: Telegu 

𝗚𝗲𝗻𝗿𝗲: 𝗥𝗼𝗺𝗮𝗻𝘁𝗶𝗰,Millitary-𝗔𝗰𝘁𝗼𝗻-𝘁𝗵𝗿𝗶𝗹𝗹𝗲𝗿

𝗜𝗺𝗱𝗯:𝟴𝟰/𝟭𝟬❤️

আমি ব্যাক্তিগতভাবে Crime-psychological Thriller, Biography,Life relate movie পছন্দ করি।রোমান্টিক‌ মুভি আমার একদমই পছন্দ না।কারন বেশিরভাগ মুভিই ঘুরে ফিরে প্রথম দেখায় প্রেম,ছ্যাসরামী,টিপিকাল কাহিনীতে ভরপুর।কিন্তু সিতা রামাম ছবির প্লট সম্পূর্ন ভিন্ন ভাবে তৈরি।দুলকার সালমানের জন্যই মুভিটা দেখা।

#স্পয়লারফ্রী:

 ১৯৮৫সাল;পাকিস্তানী মেয়ে আফরিন লন্ডনে এক সমস্যা তৈরি করায় তার প্রচুর টাকার প্রয়োজন হয়। ব্রিগেডিয়ার দাদা তারিকের কাছে টাকা চাইতে গিয়ে দেখে দাদা বেচে নেই।দাদা তার জন্য একটা ওয়াসিওত করে গেছেন,তা হল ২০বছর আগের রামের লেখা চিঠি সীতার কাছে পৌছানো।সেই ওয়াসিওত পুরা করতে ভারতে আসে আফরিন।শুরু হয় সীতা অথবা রামকে খুজে বের করা।

রাম ও সীতার কাহিনীতে আসা যাক।

ল্যাফটেনেন্ট রাম সাহসী একজন সৈনিক,ছোটবেলা থেকেই অনাথ,পরিবার পরিজন বলতে কিচ্ছু নেই।বেতনের প্রায় সব টাকাই জমায়,ছুটিতে পুরা দেশ ঘুরে বেড়ায়।তিনি কাশ্মীরে পোস্টিং রত অবস্থায় সেখানকার জঙ্গি ও দাঙ্গা দমন করে সারাদেশে আলোচনায় আসে।রেডিও নিউজে তার সাক্ষাৎকারে তার অনাথ হওয়া সম্পর্কে জানতে পারায় সবার তার প্রতি সহানুভূতি তৈরি হয়।দেশের নানা প্রান্ত থেকে ব্যাপক চিঠি আসতে থাকে ,সবাই তাকে আপন করে নিতে চায়।এর মধ্যে একজনের চিঠি ছিল,যে নিজেকে রামের স্ত্রী হিসেবে সম্বোধন করতো; চিঠিতে নাম লেখা ছিল সীতা মাহালাক্সমী।প্রতিদিন সিতার ঐ চিঠিগুলো পড়ে ধীরে ধীরে সীতার প্রেমে পড়ে যায় রাম।কিন্তু ঠিকানা বিহীন চিঠির জবাব পাঠানো সম্ভব ছিল না।

খোজা শুরু করল সেই অদেখা ভালোবাসা সীতাকে।

সীতার পরিচয় দিলে স্পয়লার হয়ে যাবে।

রামের সীতাকে খুজে পাওয়া,তাদের মধ্যকার chemistry ,তাদের মিলনের মধ্যে নানা বন্ধকতা,মিলনের পরেও তাদের প্রতিকুলতা সবই উপভোগ্য।

অপর দিকে রাম ও সীতার ব্যক্তিগত জীবনের কাহিনী ছবিকে পূর্নতা দিয়েছে।

শেষ ভাগে ভারতীয় বাহিনীর কাশ্মীরে করা অপারেশন গল্পের মোড় ঘুরিয়ে দেয়।

কি হয়েছিল রাম আর সীতার?তারা আলাদা হলো কিভাবে?আফরিন কি সেই চিঠি সীতার কাছে পৌছাতে পারবে?রাম সীতার কি আবার দেখা হবে?

এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে মুভিটি দেখে ফেলুন।

দুই টাইমলাইনে ছবিটি বেশ‌‌ সুন্দরভাবেই‌ এগিয়েছে।মুভির ডায়লগ ডিলেভারি, সিনেমাটোগ্রাফি,অভিনয়,বিজিএম সব কিছুই ছিল অসাধারন।

সবচেয়ে জোস ছিল ছবির কাহিনী।দুলকার সালমান আর ম্রুনাল ঠাকুরের অভিনয় ও রসায়ন ছিল অসাধারন।আমার জীবনে দেখা সেরা রোমান্টিক‌ ছবির একটা❤️❤️

শেষ আধা ঘন্টায় টানটান উত্তেজনার ভেতর দিয়ে গেছে মুভি।টুইস্টের পর টুইস্ট,সব কিছুই‌‌ ছিল unpredictable।

রাম আর সীতার জন্য সবাই অঝোরে কাদতে বাধ্য হবে এটুকু গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি। ছবিটা দেখে দেখতে শেষ আধা ঘন্টা খালি কানছি ভাই!😭😭আর কতবার যে goosebumps দিছে,নিজেও বলতে পারব না।

একদম পরিপূর্ণ একটা ছবি,কোনো খারাপ দিক খুজে পাওয়া সম্ভব না।

এ ছবির রিভিউ দেয়ার সঠিক ভাষা আমার জানা নাই।ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।

𝙋𝙚𝙧𝙨𝙤𝙣𝙖𝙡 𝙧𝙖𝙩𝙞𝙣𝙜:10/10🔥

Cookie Consent
We serve cookies on this site to analyze traffic, remember your preferences, and optimize your experience.
Oops!
It seems there is something wrong with your internet connection. Please connect to the internet and start browsing again.